লাখো মানুষের ভালোবাসায় শিরিনের শেষ বিদায়

লাখো মানুষের ভালোবাসায় শিরিনের শেষ বিদায়

আল-জাজিরার নারী সাংবাদিকের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে। তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে পূর্ব জেরুজালেমের ওল্ড সিটিতে লাখো মানুষ জড়ো হন।

এর আগে পশ্চিম তীরে ওই নারী সাংবাদিককে হত্যার প্রতিবাদে ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভে আবারও গুলি চালায় ইসরাইলি বাহিনী। এদিকে আল-জাজিরার সাংবাদিককে হত্যার প্রতিবাদে তুরস্ক, যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ইসরাইলবিরোধী বিক্ষোভ হয়েছে।

আল-জাজিরার নারী সাংবাদিকের শেষকৃত্যে অংশ নিতে শুক্রবার লাখো মানুষ ভিড় করেন পূর্ব জেরুজালেমের ওল্ড সিটির মাউন্ট জিয়ন প্রটেস্ট্যান্ট কবরস্থানে। এ সময় সেখানে আবেগঘন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তার দাফন সম্পন্ন হয়।

এর আগে ওই নারী সাংবাদিকের মরদেহ বহনকারী মিছিলে গুলি চালায় ইসরাইলি বাহিনী। মিছিল থেকে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে শুরু হয় সংঘর্ষ।

শিরিন আবু আকলেহের হত্যার ঘটনায় এখনো বিশ্বজুড়ে সমালোচনার ঝড় বইছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তীব্র নিন্দা জানানোর পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ইসরাইলবিরোধী বিক্ষোভ করতে দেখা যায়। এদিন তুরস্কের ইস্তাম্বুলে ইসরাইলি কন্স্যুলেটের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করেন কয়েকশ মানুষ। অবিলম্বে আবু আকলেহের হত্যার বিচারের দাবি জানান তারা।

তাদের একজন বলেন, ইসরাইল পরিকল্পিতভাবে শিরিনকে হত্যা করেছে। কারণ তিনি মধ্যপ্রাচ্যের নির্যাচিত নিপীড়ত মানুষের কথা বলতেন। তিনি ফিলিস্তিনিদের করুণ চিত্র তুলে ধরেছেন। ইসরাইলি বাহিনীর ভয়াবহ মুখোশ বিশ্বের সামনে উন্মোচন করেছেন। ইসরাইল কোনোভাবেই এর দায় এড়াতে পারে না। অবশ্যই এই হত্যার বিচার করতে হবে। তারা কোনোভাবেই আইনের ঊর্ধ্বে নয়।

 

আল-জাজিরার নারী সাংবাদিকের হত্যায় জড়িতরা কোনোভাবেই ছাড় পাবে না বলে সতর্ক করেছেন কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানি। তেহরানে ইরানের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ইসরাইলি বাহিনীর জঘন্য অপরাধ তুলে ধরায় প্রাণ হারাতে হয়েছে আবু আকলেহকে।

তিনি বলেন, শিরিন আবু আকলেহর পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। ইসরাইলি বাহিনী তাকে হত্যা করলেও কোনোভাবে এর দায় এড়াতে পারবে না। এর মাধ্যমে তারা দ্বিচারিতার প্রমাণ দিয়েছে। ইসরাইলকে অবশ্যই এ ধরনের জঘন্য কর্মকাণ্ড বন্ধ করতে হবে।

হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে জড়িতের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত ব্রিটিশ প্রতিনিধি বারবারা উডএয়ার্ড।

ফিলিস্তিনের তথ্য মন্ত্রণালয় বলছে, ২০০০ সাল থেকে এ পর্যন্ত ইসরাইলি বাহিনীর গুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন ৪৫ জন সাংবাদিক।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles