mission71


বীর মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা সেবা বৃদ্ধির লক্ষ্যে শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা এবং ওষুধ ক্রয়ের প্রয়োজনীয় অর্থ বৃদ্ধির ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করেছে সংশ্লিষ্ট সংসদীয় স্থায়ী কমিটি।

এ সহায়তা বাবদ ৭৫ হাজার টাকা পর্যন্ত বাড়ানোর সুপারিশ করা হয়েছে। সরকারি হাসপাতালগুলোতে এ সেবা দেয়ার সুপারিশও করেছে কমিটি।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) একাদশ জাতীয় সংসদের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ১৮তম বৈঠকে এসব সুপারিশ করা হয়।

জাতীয় সংসদ ভবনে কমিটির সভাপতি শাজাহান খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটির সদস্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, রফিকুল ইসলাম, বীর উত্তম, কাজী ফিরোজ রশীদ এবং মোছলেম উদ্দিন আহমদ অংশ নেন।

বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি মো. শাজাহান খান সাংবাদিকদের বলেন, উপজেলা, জেলা, বিভাগীয় ও বিশেষায়িত সরকারি হাসপাতালে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা সহায়তা হিসেবে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত বিনামূল্যে সেবা দেয়া হয়। আমরা এটা ৭৫ হাজার টাকা করতে বলেছি।

কমিটির বৈঠকে রাজাকারদের তালিকা প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা বলে জানান কমিটির সভাপতি শাজাহান খান। তিনি বলেন, আমরা যাদের নাম পাচ্ছি তাদের তালিকা সংশ্লিষ্ট উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলে পাঠিয়ে দিচ্ছি। সেখান থেকে যাচাই-বাছাই হয়ে আসছে। তারপর তালিকা করা হচ্ছে। আইনটা হয়ে গেলে তালিকা প্রকাশ করা হবে।

বৈঠক সূত্রে জানা যায়, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশের অগ্রগতি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের গৃহীত পরিকল্পনাসমূহের অগ্রগতি এবং বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের নির্বাচনের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে আলোচনা হয়।

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশের লক্ষ্যে জেলা ও উপজেলার সংশ্লিষ্ট সকলের সমন্বয়ে যথাশিগগির চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের সুপারিশ করা হয় কমিটির বৈঠকে। পরবর্তী প্রজন্মকে অবহিত করার উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধু কর্ণার ও পাঠাগার স্থাপনের পরামর্শ দেয়া হয়। এছাড়া, সঠিকভাবে যাচাই-বাছাই করে রাজাকারের তালিকা চূড়ান্ত করার সুপারিশ করা হয়।

বৈঠকে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিভিন্ন সংস্থা প্রধানগণসহ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।