mission71

অপেক্ষার আর একটা মাত্র দিন। রবিবার (২৪ অক্টোবর) ভারত তাদের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের বিরুদ্ধে টি-২০ বিশ্বকাপ মিশন শুরু করতে চলেছে। এই হাইভোল্টেজ ম্যাচে পাকিস্তানের যে পাঁচ ক্রিকেটার ভারতীয় দলকে মুশকিলে ফেলতে পারেন তাদের মধ্যে পাকিস্তানি অধিনায়ক বাবর আজম তো রয়েছেনই। পাশাপাশি আরও যারা রয়েছেন তাদের কথাই আমাদের এই প্রতিবেদনে তুলে ধরা হলো-

বাবর আজম- পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজম বর্তমানে তার ক্রিকেট ক্যারিয়ারের সেরা ফর্মে রয়েছেন। আন্তর্জাতিক টি-২০ ক্রিকেটে তিনি এখনও পর্যন্ত ৬১টি ম্যাচে খেলেছেন। সেখানে তার সংগ্রহ ২২০৪ রান। অনেক সাবেক ক্রিকেটারদের মতে বাবর আজম পারেন ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের ফলাফল বদলে দিতে।

মোহম্মদ রিজওয়ান- এবারের বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বড় ভরসা তাদের উইকেটকিপার-ব্যাটার মোহম্মদ রিজওয়ান। ২০১৬ সালে খারাপ ফর্মের জন্য তিনি দল থেকেও বাদ পড়েন। তবে তাতেই দমে যাননি রিজওয়ান। নিজের ফর্ম ফিরে পেয়েছেন এবং জাতীয় দলে ফের জায়গা করে নিয়েছেন। এখনও পর্যন্ত ৪৩টি আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচে রিজওয়ান করেছেন ১০৬৫ রান।

 

শাহিন শাহ আফ্রিদি- ছয় ফুট ছয় ইঞ্চির শাহিন শাহ আফ্রিদি পাকিস্তানের বোলিং বিভাগে বড় চমক দেখানোর জন্য তৈরি। ২০২০ সালের এপ্রিলে পাকিস্তানের হয়ে অভিষেক শাহিনের। পাকিস্তান ক্রিকেটে সফল এই বাঁহাতি পেসার পাকিস্তানের হয়ে এখনও পর্যন্ত ৩০টি টি-২০ ম্যাচে খেলেছেন। যেখানে তার সংগ্রহ ৩২টি উইকেট। ইতিমধ্যেই টি-২০ ক্রিকেটে ১০০ উইকেট নেওয়ার নজিরও গড়ে ফেলেছেন শাহিন। তিনিই সর্বকনিষ্ঠ পেসার, যিনি এই কীর্তি গড়েছেন।

হাসান আলি- ২০১৭ সালে পাকিস্তানকে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি এনে দেওয়ার অন্যতম কারিগর ছিলেন হাসান আলি। ওই টুর্নামেন্টে ১৩টি উইকেট নিয়ে প্লেয়ার অব দ্যা টুর্নামেন্টের পুরস্কারও জিতেছিলেন হাসান। পাকিস্তানের এই মিডিয়াম পেসারের মূল ভূমিকা নজরে পড়ে যখন মিডল ওভারে বোলিং বৈচিত্র্যের প্রয়োজন হয়। এখনও পর্যন্ত ৪১টি আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচে ৫২টি উইকেট নিয়েছেন তিনি।

মোহম্মদ হাফিজ- পাকিস্তানি অলরাউন্ডার মোহম্মদ হাফিজের জাতীয় দলে অভিষেক ২০০৩ সালে। তখন থেকেই ধারাবাহিক ভাবে পাকিস্তানকে ব্যাটে-বলে ভরসা দিয়েছেন। এখনও পর্যন্ত তিনি পাকিস্তানের জার্সিতে ১১৩টি টি-২০ ম্যাচে খেলেছেন। এবং ক্রিকেটের সবথেকে ছোট ফর্ম্যাটে তার সংগ্রহ ২৪২৯ রান। যেখানে রয়েছে ১৪টি হাফসেঞ্চুরিও। স্পিনার হিসেবে ১১৩টি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ৬০টি উইকেট নিয়েছেন হাফিজ।